Sunday, April 30, 2017

প্রমা হইতে অনুভূত প্রমার
উপকারিতা, কাজেরতা, প্রয়োগশীলতা,
ইত্যাদি অধিক সনির্বন্ধ।
আমার অনুরক্তির প্রশ্ন বাহুল্য-
মানবজাতির অকাট্য সৃষ্টি।
প্রভাব এইরূপ যে
ইহার পরিহার নির্বুদ্ধিতা বৈকি।

এমত উপলব্ধি পরিছন্ন ও প্রাচীন
যথা- প্রয়োগ অহরহ,
এবং অত্যন্ত লাভজনক।

ব্যতিক্রম একটি মাত্র-
সেইক্ষেত্রে পরিতাপ ভীষণ স্বার্থপর,
কেননা দ্বিভাব।
তবুও অভিপ্রায়, যদিবা এইরূপ হইত-
সে কোনোক্রমে অনুভূত প্রমা
অগ্রাহ্য করিয়া, হনুমান-কলা পূর্বক 
বক্ষভেদ অথবা অন্য কোনো কৌশলে
প্রমা দেখিতে পাইত!
তথা সমস্ত যুক্তি, ব্যাখ্যা, প্রত্যাশা, প্রতীক্ষা,
তথাজনিত ক্রোধ... ইত্যাদি
মুক্তি পাইত।


সম্ভবত এই কারণে
পক্ষপাত, গুণতন্ত্র হইতে,
নিদিনপক্ষে আবেগশীল ক্ষেত্রে,
এবং দীর্ঘকালীনতায়
অধিক স্থিতিশীল।

Wednesday, April 19, 2017

অসিদ্ধি সম্ব্রিত যাবতীয় পরতালের 
একমাত্র নিকৃষ্ট উপাদান-
যুক্তিবিহীন, তথাকথিত নির্মল,
আবেগ। 

বাণিজ্য, অর্থাৎ গণিত 
ঐতিহাসিক এবং সজ্ঞাবদ্ধ হেতুতে,
প্রায় মর্জাদা রক্ষার্থে-
কলা-পরিসীমার বহিরাগত।
ধর্মের ন্যায়- এমত বহুচর্চিত
যে যুক্তি দ্বারা তাহার খন্ডন অসম্ভব।

সংজ্ঞা সর্বজনীনভাবে সহজ হওয়া প্রয়োজন,
কলা বা অন্যথা।
মহাকাব্য বা অন্য যে কোনো লোকপ্রি়র ন্যায়।

গণিত বা বাণিজ্যের ন্যায় 
অতীন্দ্রি় বস্তুসমূল;
যেন উর্য্যকেন্দ্র-
শহর হইতে কিছুটা দূরেই
প্রতিষ্ঠিত থাকিবে চিরটা।
তাহা উর্য্যার প্রয়োজন যত
সহজবোধ্য হউক না কেন।

যে কোনো বিজ্ঞান,
বাণিজ্য, গণিত, পরিসংখ্যান, যুক্তি, ইত্যাদি
যে কলার ক্ষেত্রবিশেষ-
তাহা ধর্মের অহেতুকতা হইতেও
অধিক দুর্বোধ্য-
তথা চিরন্তন সত্য।

এমত সত্যের যে কোনো ক্ষেত্রে,
তাহা যতই সহজাত হোক না কেন,
পরিতাপ ভীষণভাবে অপ্রয়োজনীয়।


তথাপি সকল নির্মল আনন্দের
ক্ষেত্রেই নীহিত- এই তথাকথিত, আবেগ।
এবং সমস্ত অসিদ্ধির,
বিনীত ও বিনম্র-
ব্যাখ্যা।