Thursday, August 10, 2017

রজনী পোহানোই সমীচীন; যাহারা 'ঠার বা ইশারা বোঝেনা',
হিজলগাছের মতন কেবলি 'ঠায় দাঁড়িয়ে থাকে',
কেবল যুক্তি কিংবা গুণতন্ত্রতে মনোনিবেশ করে,
'শহর থেকে কিছুটা দূরে থাকে'- এই সত্য যাহাদের আবেগ-বোধগম্য হয়,
উর্য্যকেন্দ্রকে পরম সত্য বলিয়া ভ্রম করে, যাহারা,
তাহাদের এইরূপ পরিণতিই শ্রেয়।
বুদ্ধি অথবা আবেগ কদাপি, ভূগোল বা ইতিহাসের ন্যায়,
আপেক্ষভাবেও শক্তিশালী হইতে পারে না;
দীর্ঘমেয়াদী নয়, বলাবাহুল্য!

তথা, কীটদের সৌন্দর্যায়ন স্বাভাবিক।
সেইসব কীট- যাহাদের গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর জ্বালানির খরচের হিসাব,
আগামীকালের সদ্দে আপিসে পৌঁছাইবার ছুতা ইত্যাদি, আবেগের রূপান্তর
বলিয়া মর্য্যাদা অভিলাষ করে,
সেইসব কীট- যাহারা গূমফের কলাকারুতা এবং শান্তিনিকেতনি সজ্জায়,
হৃদয় এবং মস্তিষ্ক দুই-ই অধিকার করে,
এই ধরা তাহাদের।